28 C
Dhaka
Saturday, December 3, 2022
spot_img

ব্রাজিল এর লজ্জা ভাংলো কোস্টারিকা

সেভেন আপ বললে শুরুতেই মনে পড়বে ২০১৪ বিশ্বকাপে ব্রাজিল ও জার্মানির ম্যাচের কথা। কেননা সে ম্যাচে যে ব্রাজিলকে তাদেরই মাঠে ৭-১ গোলের ব্যবধানে উড়িয়ে দিয়েছিল জার্মানি। এক আসর পর সেই সেভেন আপের ঘটনা আবার ফিরে এলো কাতারের আল থুমামা স্টেডিয়ামে। যেখানে এবার দুই প্রতিপক্ষ হলো স্পেন ও কোস্টারিকা।

বুধবার (২৩ নভেম্বর) আল থুমামা স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত ১০টায় শুরু হয়। স্পেনের হয়ে ২ গোল পেয়েছেন ফেরান টরেস। একটি করে গোল করেছেন দানি ওলমো, মার্কো অ্যাসেনসিও, গাভি, কার্লোস সোলার ও আলভারো মোরাতা।

খেলা শুরুর ৫ মিনিটের মধ্যেই এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ ছিল স্পেনের সামনে। কিন্তু ওলমোর করা শট বারের বাইরে দিয়ে যায়। গোল পোস্টের ৪০ গজ দূর থেকে বাম দিক দিয়ে অসাধারণ ক্রস করেন পেদ্রি কিন্তু ওলমো কাজে লাগাতে পারেননি।

আরও পড়ুন: প্রথম ম্যাচে হেরেও বিশ্বকাপ জয়ের রেকর্ড আছে, পারবে তো আর্জেন্টিনা?

৫ মিনিটের মাথায় গোল মিস করলেও ১১ মিনিটে আর ব্যর্থ হননি ওলমো। এবার ঠিকই গোল করে দলকে এগিয়ে নেন ওলমো। ডি বক্সের বাইরে থেকে আলতো করে তুলে দেন গাবি। দারুণ দক্ষতায় বল নিজের দখলে নেন ওলমো। একটু সামনে গিয়ে আলতো শটে কোস্টারিকার গোলরক্ষককে ফাঁকি দেন ওলমো। এর আগে নিশ্চিত গোল মিস করেছেন, এবার উল্লাসে ভাসিয়েছেন দলকে। ২০০২ বিশ্বকাপ থেকে এই প্রথম ১১ মিনিটের মধ্যে গোলের দেখা পায় স্পেন।

ওলমোর পর অ্যাসেনসিওর গোল। ২১ মিনিটে ২-০ গোলে এগিয়ে স্পেন। প্রথম গোলের ১০ মিনিট পরেই আবার স্পেনের লিড। আলবার বাম দিক থেকে নেওয়া ক্রস থেকে নাভাসকে ফাঁকি দিয়ে বল জালে জড়ান অ্যাসেনসিও।

৩০ মিনিটে কোস্টারিকার জালে স্পেনের তিন গোল। তৃতীয় গোলটি আসে পেনাল্টি থেকে। এরপর স্পেন গোলের জন্য আরও মরিয়া হয়ে উঠে। কিন্তু বিরতির আগে আর গোল বাড়ানো সম্ভব হয়নি। তাই তিন গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় তারা।

এতে করে রেকর্ড গড়ে প্রথমার্ধ শেষ করে স্পেন। ১৯৩৪ বিশ্বকাপের পর এই প্রথম বিশ্বকাপের কোনো ম্যাচের প্রথমার্ধে ৩ গোল দিলো স্পেন। এ ছাড়া ২০১৪ সালে ব্রাজিল-জার্মানি ম্যাচের পর এই প্রথম কোনো দল আধঘণ্টার মধ্যে দুই গোল দেয়। ১১ মিনিটে প্রথম গোলটি আসে ওলমোর পা থেকে। অ্যাসেনসিও ব্যবধান দিগুণ করেন ১০ মিনিট পরেই। অ্যাসেনসিওর গোলে ১০ মিনিট না যেতেই পেনাল্টি থেকে এগিয়ে দেন টরেস। প্রথমার্ধে ১টি আক্রমণও করতে পারেনি কোস্টারিকা। ৮৩ শতাংশ বল নিজেদের পায়ে রাখার পাশাপাশি স্পেন আক্রমণ করে ৬বার।

বিরতি থেকে ফিরে কোস্টারিকার জালে আরও ৪ গোল দেয় জাভি-ইনিয়েস্তার শীষ্যরা। ম্যাচের ৫৩ মিনিটে দ্বিতীয় গোলের দেখা পান টরেস। এর আগে প্রথমার্ধে পেনাল্টি থেকে গোল করেন এই স্ট্রাইকার। ৪-০ গোলে এগিয়ে স্পেন। গাবির কাটব্যাক থেকে কোস্টারিকার ডিফেন্ডারদের ফাঁকি দিয়ে টরেস খুব কাছে থেকে বল জালে জড়ান। জাতীয় দলের জার্সিতে টরেসের এটি ১৫তম গোল।

ম্যাচের ৭৪ মিনিটে গোল উৎসবে যোগ দেন তরুণ গাবি। এর আগের শট নাভাস রুখে দিয়েছিলেন। কিন্তু বল নিজের নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেননি। বাঁ দিক থেকে মোরাতা বল ডি বক্সে আলতো শটে তুলে দেন। গাবির শট ডান পোস্টে লেগে জালে জড়ায়। নাভাস কিংবা কোস্টারিকার ডিফেন্ডাররা কেউই বুঝতে পারেননি।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

22,044FansLike
3,591FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -spot_img

Latest Articles